Breaking News

ট্রাস্ট ওয়ালেট কি? ট্রাস্ট ওয়ালেট অ্যাপ রিভিউ How does trust wallet work?

একটি অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে যদি কয়েক ধরনের সুবিধা পান যেমন অর্থ আদান-প্রদান, বিভিন্ন জায়গায় পেমেন্ট পরিশোধ করা, এবং শেয়ার মার্কেটে ইনভেস্ট সিস্টেম যদি একটি অ্যাপ্লিকেশনে পাওয়া যায় তাহলে কেমন হবে? হ্যাঁ এরকম একটি অ্যাপ্লিকেশন নিয়ে আজকে আপনাদের সাথে আলোচনা করব। গুগল প্লে স্টোরে বর্তমানে জনপ্রিয় এই অ্যাপ্লিকেশনটি খুবই ভালো অবস্থানে রয়েছে। এমনকি এর ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রায় কয়েক মিলিয়ন। তাই চলুন কথা না বাড়িয়ে অ্যাপ্লিকেশনটি কি এবং এটি দ্বারা কিভাবে উপকৃত হওয়া যাবে এবং তা কিভাবে ব্যবহার করতে হবে আর অ্যাপ্লিকেশনটিতে কি সকল ফিচার রয়েছে তার সবকিছুই আলোচনা করব আজকের এই আর্টিকেলে। 


অ্যাপ্লিকেশন টির নামঃ (App Name)

আমাদের আজকে আলোচনা কৃত অ্যাপ্লিকেশনের নাম হচ্ছে ট্রাস্ট ওয়ালেট (Trust Wallet) গুগল প্লে স্টোরে জনপ্রিয় এই অ্যাপ্লিকেশনটি এখন পর্যন্ত পাঁচ কোটিরও বেশি ইন্সটল হয়েছে। এছাড়াও ১১ লাখের বেশি রিভিউ নিয়ে অ্যাপ্লিকেশনটি গুগল প্লে স্টোরে ৪.৬ রেটিং নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। অসংখ্য পজেটিভ রিভিউ অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহারে আপনার কৌতুহল জাগাবে। 


ট্রাস্ট ওয়ালেট কি?  (What is a Trust wallet?)

ট্রাস্ট ওয়ালেট হচ্ছে বাইন্যান্স প্ল্যাটফর্ম এর অফিসিয়াল ক্রিপ্টো ওয়ালেট। এবং এটি একটি ডিসেন্ট্রালাইজড ক্রিপ্টো ওয়ালেট। এখানে আপনি ক্রিপ্টো কারেন্সি আদান প্রদান এবং দীর্ঘ মেয়াদের জন্য ক্রিপ্টোকারেন্সি স্টোর বা জমা করে রাখতে পারবেন। এছাড়াও আপনি ট্রাস্ট ওয়ালেট ব্যবহার করে ইন্টারেস্ট এবং P2P অর্থাৎ ব্যক্তি থেকে ব্যক্তি খুব দ্রুত উপায় এ অর্থ আদান-প্রদান এবং মার্কেটপ্লেসে অর্থ ইনভেস্ট করার একটি উৎকৃষ্ট প্লাটফর্ম হিসেবে পাবেন এই ট্রাস্ট ওয়ালেটকে। আপনি যদি বিটকয়েন এবং ইথিরিয়াম ওয়ালেট এর ব্যতিক্রম ওয়ালেট খুঁজে থাকেন তাহলে ট্রাস্ট ওয়ালেট আপনার জন্য একটি সেরা প্ল্যাটফর্ম হিসেবে বিবেচিত হবে। ট্রাস্ট ওয়ালেট এমনভাবে ডিজাইন করা হয়েছে যাতে খুব সহজেই ব্যবহারকারী ক্রিপ্টোকরেন্সি ক্রয় বিক্রয় এবং দীর্ঘ সময় ধরে স্টোর করে রাখতে পারেন এবং যাতে এটির ইন্টারফেস বুঝতে অসুবিধা না হয়। আপনি এখানে বিটকয়েন থেকে শুরু করে টি আর এক্স, লাইট কয়েন, বিএনবি, এক্স আরপি, স্টেলার, কসমস কয়েন ছাড়াও ERC20 BEP20 এবং ERC721 টোকেন গুলোর একসেস খুব সহজেই পেয়ে যাবেন।



ট্রাস্ট ওয়ালেট এর ফিচারসমূহঃ  (Features of Trust wallet)


ওয়ালেটঃ  (Wallet)

এখানে আপনি সেন্ড (Send) অপশন থেকে ক্রিপ্টো কারেন্সি কাউকে পাঠাতে পারবেন, রিসিভ (Receive)  অপশন থেকে ক্রিপ্টো কারেন্সি নিতে পারবেন এবং বাই (Buy) অপশন থেকে ক্রিপ্টোকারেন্সি ক্রয় করতে পারবেন। ইতিমধ্যে আমরা কিভাবে ক্রিপ্টো কারেন্সি আদান-প্রদান করবো তা নিয়ে পূর্বের আর্টিকেল গুলোতে জেনেছি আজকে দেখাব কিভাবে ট্রাস্ট ওয়ালেট এর মাধ্যমে ক্রিপ্টোকারেন্সি ক্রয় করবেন। 


ট্রাস্ট ওয়ালেট থেকে ক্রিপ্টো কারেন্সি ক্রয় পদ্ধতিঃ ( The process to buy crypto from the Trust wallet)

প্রথমত বলে রাখি এই প্রক্রিয়াটি শুধুমাত্র বিদেশে অবস্থানরত বিশেষ করে ইউরোপ আমেরিকায় যে সব প্রবাসী ব্যক্তিবর্গ যারা চাচ্ছেন ট্রাস্ট ওয়ালেট থেকে ক্রিপ্টো কারেন্সি ক্রয় করতে। আপনি এ প্রক্রিয়াটি শুরু করার পূর্বে জেনে নিবেন যে, আপনার অবস্থানকৃত দেশ থেকে ট্রাস্ট ওয়ালেট থেকে বিটকয়েন বা অন্য ক্রিপ্টো কয়েন ক্রয় করা সাপোর্ট করে কিনা। কারণ আমাদের দেশে এখনও এই প্রতিষ্ঠানটি ফিচারটি চালু করেনি তাই এই মুহূর্তে আমাদের দেশ থেকে ট্রাস্ট ওয়ালেট থেকে বিটকয়েন ক্রয় করা সম্ভব নয়। আমি নিচে কিছু দেশের নাম উল্লেখ করে দিচ্ছি যেখান থেকে আপনি এই ফিচারটি ব্যবহার করে বিটকয়েন সহ অন্যান্য ক্রিপ্টো কয়েন ক্রয় করতে পারবেন। উল্লেখযোগ্য দেশগুলোর মধ্যে হচ্ছেঃ কানাডা, আমেরিকা এবং ইউরোপ, এছাড়াও তালিকায় আছে মেক্সিকো, হংকং, অস্ট্রেলিয়া ইত্যাদি।

ট্রাস্ট ওয়ালেট এর মাধ্যমে ক্রিপ্টো কারেন্সি ক্রয় করতে হলে প্রথমে আপনাকে বাই (Buy) অপশনটিতে ক্লিক করতে হবে. আপনি যে কয়েনটি ক্রয় করতে চান সেটি নির্বাচন করুন, যেমন আমি বিটকয়েন ক্রয় করতে চাচ্ছি তাই আমি এটিতে ক্লিক করব। এরপর আপনি কি পরিমান বিটকয়েন ক্রয় করবেন সেটি ইনপুট করুন আপনাকে সর্বনিম্ন ৫০ ডলারের সমপরিমাণ ক্রিপ্টোকারেন্সি ক্রয় করতে হবে এর নিচে পারবেন না। যেমন আমি এখানে ১০০ ডলার সমপরিমাণ বিট কয়েন কেনার জন্য ইনপুট করলাম। এখন দেখবেন ট্রাস্ট ওয়ালেটের সাথে সংযুক্ত বিভিন্ন প্লাটফর্ম রয়েছে যেগুলো আপনাকে সর্বনিম্ন দামে বিটকয়েন দিবে। যেটা সর্বনিম্ন দামে আপনাকে বিটকয়েন দেবে ট্রাস্ট ওয়ালেট সেটাকেই আপনার সামনে দেখাবে। যেমন এখানে দেখতে পাচ্ছেন Ramp নামক একটি Third-Party আমাকে বিটকয়েন গুলো সর্বনিম্ন দামে দিচ্ছে। আপনি দেখতে পাচ্ছেন আমি ১০০ ডলারের বিনিময় 0.00232564 BTC বা বিটকয়েন পেতে যাচ্ছি। এরপর আপনি Next এ ক্লিক করবেন। ব্রাউজার অপেন করার মাধ্যমে আপনাকে এই প্রসেসটি ফলো করতে হবে। চিন্তার কোন কারণ নেই লিংকটি আপনাকে ওই থার্ড পার্টি ওয়েবসাইটে নিয়ে যাবে আর এটি বিশ্বস্ত তার কারণ ট্রাস্ট wallet নিজেদের প্ল্যাটফর্মে এটিকে সংযুক্ত করে রেখেছে।


১০০ ডলারের বিটকয়েন ক্রয় করতে গেলে সেখান থেকে সাড়ে তিন ডলারের মত ফি কেটে নেবে। যেমন দুই ডলার হচ্ছে Ramp ফি,  এক ডলার হচ্ছে ট্রাস্ট ওয়ালেটের ফি, আর ৪০ সেন্ট  হচ্ছে নেটওয়ার্ক এক্সচেঞ্জ ফি। আপনি চাইলে ক্রেডিট কার্ড বা অ্যাপল পে এর মাধ্যমে অর্থ পরিশোধ করতে পারবেন। আমি ক্রেডিট কার্ড বাছাই করে এর পরবর্তী অপশনে বাই নাও (Buy Now) তে ক্লিক করলাম। এরপর আপনাকে ইমেইল দিতে বলবে আপনি ইমেইল দেওয়ার পর Continue-তে ক্লিক করবেন। আপনার ইমেইলে একটি ভেরিফিকেশন কোড যাবে সেটি বসিয়ে আবার Continue-তে ক্লিক করবেন। এর পরের পেজে আপনার নাম মোবাইল নাম্বার এবং জন্ম তারিখ দিয়ে আবার Continue- তে ক্লিক করবেন। খেয়াল রাখবেন উক্ত তথ্যগুলো অবশ্যই আপনার ভ্যালিড অর্থাৎ সঠিক তথ্য হতে হবে। এরপরের স্টেপে আপনাকে এড্রেস দিতে হবে এবং আপনি কোন শহরে থাকেন সে শহরের নাম এবং কোন বিভাগে থাকেন সে বিভাগের নাম এছাড়াও আপনার শহরের পোস্টাল/ জিপ কোড দিতে হবে সর্বশেষ আপনার দেশের নাম নির্বাচন করে Continue- তে ক্লিক করতে হবে। এরপর আপনার কার্ডের তথ্য গুলো দিয়ে একের পর এক স্টেপ ধরে এগোতে থাকবেন সর্বশেষ Buy Now তে ক্লিক করলেই আপনার ট্রাস্ট ওয়ালেটে ক্রয় করা ক্রিপ্টো গুলো এড হয়ে যাবে। এবার আপনি চাইলে এখান থেকে যেকোন ওয়ালেটে ক্রিপ্টোকারেন্সি পাঠাতে পারবেন।


লিস্টে আপনার পছন্দের ক্রিপ্টোকারেন্সি সংযুক্ত করতে চাইলে ওপরে ডানদিকে ফিল্টার বাটনটিতে ক্লিক করে আপনার পছন্দের ক্রিপ্টোকারেন্সি টি বাছাই করে নিলে সেটি ওয়ালেট অপশনে লিস্ট আকারে শো করবে।


ডি অ্যাপসঃ (DApps)

DApps হচ্ছে ডিসেন্ট্রালাইজড প্ল্যাটফর্ম। ইন্টারনেটে বিদ্যমান থাকা জনপ্রিয বিভিন্ন ধরনের ডিসেন্ট্রালাইজড অ্যাপ বা প্লাটফর্ম এখানে একসাথে পেয়ে যাবেন। DApps অপশনটিতে আরো রয়েছে DeFi অর্থাৎ ডিসেন্ট্রালাইজড ফাইন্যান্স, স্মার্ট চেইন, Yield Farming অর্থাৎ ডিসেন্ট্রালাইজড এক্সচেঞ্জ থেকে ঋণ, ধার, বা কয়েন স্ট্যাকিং করা যেখান থেকে ইন্টারেস্ট পেতে পারেন। Games এই অ্যাপ গুলো থেকে গেমস খেলে ক্রিপ্টো উপার্জন করতে পারবেন, এছাড়া রয়েছে Exchanges, New market places, Social, Utility, Staking ইত্যাদি। 


DEX: 

Dex হচ্ছে  ডিরেক্ট  বা সরাসরি এক্সচেঞ্জ, এ অপশনটিতে আপনি দুইটি ফিচারস পাবেন একটি হচ্ছে সোয়াফ ( Swap) আরেকটি হচ্ছে একচেঞ্জ। সোয়াপ (Swap) করার মাধ্যমে একটি কারেন্সি থেকে আরেকটি ক্রিপ্টোকারেন্সি অদল বদল করতে পারবেন আর একচেঞ্জ অপশন থেকে একটা কারেন্সি থেকে আরেক কারেন্সি বিনিময় করতে পারবেন।


সেটিংসঃ (Settings)

এখানে সর্বপ্রথম যে ফিচারটি দেখতে পাবেন সেটি হচ্ছে (Wallets) এখান থেকে আপনি চাইলেই একাধিক ওয়ালেট তৈরি করতে পারেন। এর জন্য Wallet অপশনটিতে প্রবেশ করে যোগ চিহ্ন সম্বলিত ফিচারটিতে ক্লিক করুন। এরপর যেভাবে একাউন্ট খুলেছেন সে প্রসেসটি অনুসরণ করুন। Preferences অপশন থেকে চাইলে কারেন্সি পরিবর্তন করতে পারেন এবং ডিসেন্ট্রালাইজড অ্যাপগুলো অফ রাখতে পারেন। Price Alerts অপশনটি চালু করে দিলে আপনি যে কয়েনগুলো জনপ্রিয় সেগুলোর লেটেস্ট আপ টু ডেট নিউজ পেতে থাকবেন।

আপনার যদি অন্য কোন ওয়ালেট থেকে থাকে, তাহলে সেটি Wallet Connect থেকে সংযুক্ত করতে পারবেন ট্রাস্ট ওয়ালেটে। এর জন্য আপনাকে ওই ওয়ালেটের কিউআর কোড স্ক্যান করতে হবে।

এরপরের অপশন গুলোতে ট্রাস্ট ওয়ালেটের কমিউনিটিগুলো খুঁজে পাবেন। প্রায় সবগুলো সোশ্যাল সাইটে তাদের কমিনিউটি রয়েছে যেমন টুইটার, টেলিগ্রাম, ফেসবুক, ইউটিউব ইত্যাদি।



কেন ট্রাস্ট ভলেট ব্যবহার করব? (Why to use Trust wallet?)


ট্রাস্ট ওয়ালেট হচ্ছে ক্রিপ্টো ওয়ালেটের মধ্যে সেরা একটি প্লাটফর্ম। দশ লক্ষেরও বেশি এসেট এবং ব্লকচেইন ভিত্তিক ক্রিপ্টোকারেন্সি এখানে রয়েছে। খুব সহজে এটি তে একাউন্ট খোলা যায়। আপনি এখানে একই সাথে অনেক ক্রিপ্টো কারেন্সি স্টোর করতে পারবেন। স্ট্যাকিং এর ক্ষেত্রে আপনি ডাবল রিটার্ন পেতে পারেন। এছাড়াও পাঁচ মিনিটের মধ্যে এখান থেকে বিটকয়েন ক্রয় করতে পারবেন যদিও এই সুবিধাটি এখনো আমাদের দেশে চালু হয়নি। খুব তাড়াতাড়ি যে কোন কয়েন এক্সচেঞ্জ করতে পারবেন। আপনার ওয়ালেটে থাকা ক্রিপ্টোকারেন্সির মাধ্যমে ইন্টারেস্ট পাবেন। অ্যাপের মধ্যে আপনি চার্ট এবং প্রাইস চেক করতে পারবেন। একই সাথে আপনি কালেক্টিভলস ,আর্ট এবং এনএফটি সব এক জায়গাতেই পাবেন। আপনার ক্রিপ্টো গুলো অন্য প্লাটফর্ম থেকে সর্বাধিক নিরাপদে থাকবে।

আপনি যদি এয়ার্ড্রপ এর কাজ করে থাকেন তাহলে ট্রাস্ট ওয়ালেট আপনার জন্য একটি উৎকৃষ্ট প্ল্যাটফর্ম। বেশিরভাগ এয়ার্ড্রপ এর টোকেন গুলো আপনি সরাসরি ট্রাস্ট ওয়ালেটে নিয়ে আসতে পারবেন।


কেন ট্রাস্ট ওয়ালেট ব্যবহার করব না? (Why not use Trust wallet)


যেহেতু এটি একটি ডিসেন্ট্রালাইজড ভিত্তিক প্লাটফর্ম সেহেতু এটি হার্ডওয়ার ওয়ালেট এর মত এতটি নিরাপদ নয়। আমাদের দেশ থেকে ক্রিপ্টো কারেন্সি বিশেষ করে বিটকয়েন ক্রয় এখনো সহজলভ্য হয়ে উঠেনি। তবে আশা করা যাচ্ছে খুব শিগগিরই এই ফিচারটি চালু হবে তবে আপনি অন্যান্য কাজ গুলো খুব সহজেই করতে পারবেন। ডেক্সটপ ভিত্তিক ট্রাস্ট ওয়ালেটের কোন প্লাটফর্ম নেই। এবং অনেকেই মনে করেন এটার ইন্টারফেয়ার ডিজাইন আউটডেড অর্থাৎ পুরাতন হয়ে গিয়েছে। যেহেতু অ্যাকাউন্ট তৈরি করার সময় আপনাকে কিছু কোড দিয়ে থাকে সেগুলো হারিয়ে ফেললে পরবর্তীতে একাউন্ট রিকভার করা সম্ভব হয়ে উঠে না।


ট্রাস্ট ওয়ালেট কিভাবে ব্যবহার করব? (How to use Trust wallet?)


আপনাকে প্লে স্টোর থেকে অ্যাপ্লিকেশনটি নামাতে হবে। এরপর ক্রিয়েট এ নিউ ওয়ালেট (Create a new wallet) অপশনে ক্লিক করতে হবে। প্রাইভেসি পলিসি এবং ট্রামস এন্ড কন্ডিশন গুলো পড়ে নেবেন এরপর Agree করে Continue-তে ক্লিক করবেন। এরপর আপনাকে ১২টি রিকভারি ওয়ার্ড দিবে। এগুলোকে বলে Recovery Phrase এই ওয়ার্ডগুলো কোথাও কপি করে রেখে দিন। ভবিষ্যতে সেগুলো একাউন্ট রিকভার করার জন্য আপনার কাজে লাগতে পারে। যদি এই ওয়ার্ড গুলো হারিয়ে ফেলেন তাহলে আপনি একাউন্ট রিকভার করতে পারবেন না। পরবর্তী স্টেপে আপনাকে এই কিওয়ার্ডগুলো সিরিয়াল বাই সিরিয়াল মানে একের পর এক বসাতে হবে। এরপর Continue-তে ক্লিক করলে আপনার নতুন অ্যাকাউন্ট তৈরি হয়ে যাবে।


ট্রাস্ট ওয়ালেটের অল্টারনেটিভ বা বিকল্প কিছু ওয়ালেট সাথে আমার ব্যক্তিগত রেটিংঃ (Trust wallet alternative with ratings)


  • Coinbase Wallet: 5/5
  • Meta musk: 5/5
  • Binance: 5/5
  • Atomic wallet: 4/5
  • T wallet: 4.5/5
  • Exodus: 4/5
  • Ledger: 4/5
  • Luno wallet: 4/5


বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ এই সাইটের যাবতীয় তথ্য ইন্টারনেটে বিভিন্ন সোর্স থেকে নেওয়া। কোথাও প্রয়োগ করার আগে বিস্তারিত জেনে নেওয়ার অনুরোধ করা হল।


No comments